মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

প্রকল্প

নারায়ণগঞ্জ জেলায় বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের কার্যক্রম ।

 

 ১।

আওতাভুক্ত উপজেলার সংখ্যা

:

৫টি

২।

উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সংখ্যা

:

৫টি

৩।

উপজেলা বিত্তহীন কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সংখ্যা

:

৩টি

৪।

মহিলা বিত্তহীন কেন্দ্রীয় উন্নয়ন সমিতির সংখ্যা

:

২টি

৫।

ক) কৃষক সমবায় সমিতির সংখ্যা

:


৩৩৪টি

 

খ) মহিলা সমবায় সমিতির সংখ্যা

:

৪৮০টি

গ) বিত্তহীন পুরুষ দলের সংখ্যা

:

১৬৭টি

ঘ) বিত্তহীন মহিলা দলের সংখ্যা

:

৩৩৫  টি

 

            মোট সমবায় সমিতি/দলের সংখ্যা

:

১৩১৬টি

৬।

সর্বমোট উপকারভোগী সদস্য /সদস্যা সংখ্যা

:

৬৩,২৪৪ জন

৭।

সর্বমোট পুজি গঠন (শেয়ার ও সঞ্চয় )

:

৩ কোটি  ৭০ লক্ষ টাকা

৮।

সর্বমোট বাস্তবায়নাধীন কর্মসূচি/প্রকল্পের সংখ্যা

:

১১টি

 

 ১ ।মূল কর্মসূচি

২। আবর্তক (কৃষি) ঋণ কর্মসুচি

৩। সমন্বিত দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি

৪। পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি

৫। অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের পোষ্যদের জন্য প্রশিক্ষণ ও আত্মকর্মসংসহান কর্মসূচি

৬। পল্লী প্রগতি প্রকল্প

৭। পল্লী জীবিকায়ন প্রকল্প

৮। মহিলা বিত্তহীন কেন্দ্রীয় উন্নয়ন সমিতি

৯। অংশীদাদ্রিত্বমূলক পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প-২

১০। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প

১১।অপ্রধান শষ্য উদপাদন, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াকরণ  বাজারজাতকরণ কর্মসূচি ২য় পর্যায়ে।

৯।

 মোট ঋণ বিতরন  = ১৬৫,২৩,৩৪,০০০/- (এক শত পয়  লক্ষ টাকা

 
১০। মোট ঋণ আদায় = ৩১৮৪.৯৭ লক্ষ টাকা 

নারায়ণগঞ্জ জেলায় বিআরডিবি’র মাধ্যমে উপজেলা পর্যায়ে ৫টি উপজেলা দপ্তরের মাধ্যমে ১১টি প্রকল্প/কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে । বাস্তবায়িত প্রকল্প/কর্মসূচির তালিকা:

১।             মূল কর্মসূচি ২।            আবর্তক (কৃষি) ঋণ কর্মসূচি ৩। সমন্বিত দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি(সদাবিক) ৪। পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি(পদাবিক) ৫। অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পোষ্যদের জন্য প্রশিক্ষণ ও আত্মকর্মসংসহান কর্মসূচি ৬। পল্লী প্রগতি প্রকল্প ৭। মহিলা উন্নয়ন অনুবিভাগ(মউ) ৮। অংশীদারিত্ব মূলক পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প-২(পিআরডিপি-২) ৯। পল্লী জীবিকায়ন প্রকল্প(পজীপ) ১০। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প।১১। অপ্রধান শস্য উৎপাদন, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াকরণ এবং বাজারজাতকরণ  কর্মসূচি- ২য় পর্যায়।

প্রকল্প/কর্মসূচিওয়ারী বিবরণ

১।             মূল কর্মসূচি :-

                দ্বিস্তর সমবায় ভিত্তিক প্রতিষ্ঠানিক কাঠামো’র আওতায় পল্লীর ক্ষুদ্র প্রান্তিক চাষীদের সংগঠিত করে সংগঠনের মাধ্যমে তাদেরকে মূলধন গঠন, অব্যাহত তদারকী ঋণ সরবরাহ, নিবিড় প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তিতে সহায়তা প্রদান করে দেশে সহায়ী খাদ্য নিরাপত্তা সৃষ্টিতে অবদান রাখা বিআরডিবির মূল কর্মসূচি উদ্দেশ্য । কর্মসূচিটি জেলার ৫টি উপজেলায় বাস্তবায়িত হচ্ছে।

বাস্তবায়ন অগ্রগতি।

ক্রমিক নং

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

সমিতি গঠন

৪৬৩ টি

০২

সদস্য অন্তর্ভুক্তি 

১১০২০ জন

০৩

পুজিঁ গঠন

৯৩.২৪ লক্ষ টাকা

০৪

ঋণ বিতরণ

৭৫০.৪৭ লক্ষ টাকা

০৫

ঋণ আদায়

৭৩০.৫০ লক্ষ টাকা

২। আবর্তক (কৃষি) ঋণ কর্মসূচি:

বিআরডিবি’র ঋণ কার্যক্রমের উন্নয়ন সহযোগী অর্থ সরবরাহকারী ছিল দেশের রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলো । বিভিন্ন কারণে এ খাতে ব্যাংক অর্থায়ন সংকুচিত হয়ে আসে। দারিদ্র বিমোচন কৌশলপত্র বাস্তবায়নে ২০০৩-০৪ অর্থ বছর থেকে রাজস্ব বাজেটের আওতায় গ্রাম অঞ্চলে সমবায় সমিতির সদস্য/সদস্যদের মধ্যে বিতরণের জন্য আবর্তক কৃষি ঋণ কর্মসূচী চালু করা হয়। কর্মসূচিটি জেলার ৫টি উপজেলায় বাস্তবায়িত হচ্ছে।

মোট বিতরণের পরিমাণ

মোট ঋণ আদায়

                                                   ৫৫৫.৭৩ লক্ষ টাকা

                                               ৪৭৫.০৬ লক্ষ টাকা

৩।            সমন্বিত দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি(সদাবিক):

দেশের সকল শ্রেণীর নারী পুরুষ, প্রান্তিক, ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বর্গাচাষীসহ দারিদ্র পীড়িত জনগোষ্ঠীর দারিদ্র হ্রাসের বিষয়টি গুরুত্ব আকারে বিবেচনা করে ২০০৩-০৪ সাল হতে রাজস্ব বাজেটের অর্থায়নে প্রকল্পটি নারায়নগঞ্জ জেলার ৫টি উপজেলায় বাস্তবায়িত হচ্ছে।

বাস্তবায়ন অগ্রগতি ।

ক্রমিক

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

দল গঠন

২০৮ টি

০২

সদস্য ভুক্তি

৪৭৩৭ জন

০৩

সঞ্চয় জমা 

৫০.৯৮ লক্ষ টাকা

০৪

ঋণ বিতরণ

১১৫২.৬৯ লক্ষ টাকা

০৫

ঋণ আদায়

৯৭০.১২ লক্ষ টাকা

৪।             পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি (পদাবিক):

প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য হলো প্রকল্প এলাকার দরিদ্র পুরুষ ও মহিলা জনগোষ্ঠিকে অনানুষ্ঠানিক দলে সংগঠিত করে আয়বর্ধনমূলক কর্মকান্ডে সর্ম্পৃক্তকরণ সহ কর্মসংস্থানের সৃষ্টি এবং জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে সহায়তা দাসহ স্থায়ী ভাবে তাদেও দারিদ্র বিমোচনের ব্যবসহা করা। এলক্ষ্যে উপকারভোগীদের দক্ষতা বৃদ্ধি, মানব সম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান । নিজস্ব পূজিঁগঠন, আয়বর্ধনমূলক কর্মকান্ডে পরিচালনার জন্য ঋণ প্রদান এবং বাজারজাতকরণের সুবিধা প্রদান । নারায়নগঞ্জ জেলার সদর ও বন্দর উপজেলায় ২টি কর্মসূচী বাস্তবায়িত হচেছ।

বাস্তবায়্ন অগ্রগতি।

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

সমিতি গঠন

১৭১ টি

০২

সদস্য অন্তর্ভুক্তি

৫১৩৫ জন

০৩

সঞ্চয় জমা

৯৫.৩৫ লক্ষ টাকা

০৪

মোট ঋণ বিতরণ

৫৪০৯.৭২ লক্ষ টাকা

০৫

 মোট ঋণ আদায়

৫১২১.৫৬ লক্ষ টাকা

 

৫।             অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পোষ্যদের জন্য প্রশিক্ষণ ও আত্নকর্মসংসহান কর্মসূচি :

দেশমাতৃকার স্বাধীনতা অর্জনে এদেশের বীরমুক্তিযোদ্ধাদের কৃতিত্ব সর্বজন স্বীকৃত । স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী মুক্তিযোদ্ধাদের অনেকেই আর্থিক দৈন্যতায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন।সম্পদে পিছিয়ে পড়া ঐ সকল অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের পোষ্যদের পরিবারকে আর্থিকভাবে স্বনির্ভর ও সফল করার লক্ষ্যে সরকারী অর্থায়নে ২০০৩ সন হতে জেলার ৫টি উপজেলায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচেছ।

বাস্তবায়ন অগ্রগতি :

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

ঋণ বিতরণ

৯৩.৫৪ লক্ষ টাকা

 ০২

ঋণ আদায়

৫৭.৯০ লক্ষ টাকা

৬।            পল্লী  প্রগতি প্রকল্প: পল্লী প্রগতি প্রকল্পটি সম্পূর্ণ ভাবে বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় ২০০০ সন হতে জেলায় ৫টি উপজেলায় ৫টি ইউনিয়নে বাস্তবায়িত হচ্ছে ।  পল্লী  অঞ্চলে ব্যবহারযোগ্য প্রাকৃতিক সম্পদ ও মানব সম্পদের ব্যবহার করে গ্রাম অঞ্চলের সার্বিক উন্নতি সাধন, দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে আয়বর্ধন কর্মকান্ডে প্রশিক্ষিত করার পাশাপাশি  ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ঋণ প্রদান করে দারিদ্র বিমোচন করা ও শহরে অভিগমনের প্রবনতা হ্রাস, সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পল্লী অঞ্চলের কৃষি, স্বাস্থ্য ও পুষ্টি, শিক্ষা পরিবার কল্যাণ, পানি ও পয়: নিস্কাশন ইত্যাদিসহ সকল সেবার প্রত্যাশিত মান নিশ্চিত করা এ প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য ।

বাস্তবায়ন অগ্রগতি :

ক্রমিক

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

দল গঠন

৬৬টি

০২

সদস্য অন্তর্ভুক্তি

১৫৮৯জন

০৩

সঞ্চয় আমানত

৬.৯১ লক্ষ টাকা

০৪

মোট ঋণ বিতরণ

১৫৩.৫১ লক্ষ টাকা

০৫

 মোট ঋণ আদায়

১২৩.৮৯ লক্ষ টাকা

 

৭।             মহিলা উন্নয়ন অনুবিভাগ (মউ) : গ্রামীণ মহিলাদের দারিদ্র দূরীকরণের মাধ্যমে আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও সমন্বিত গ্রামীণ মহিলা উন্নয়ন কর্মসূচি (সমক), সমবায় সমিতি গঠনপূর্বক সদস্যদের নিজস্ব পূজিঁগঠণে সহায়তা করা, মহিলাদের আয়বর্ধকমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের জন্য ঋণ প্রদান ও তদারকি, উপজেলা পর্যায়ে নিয়মিত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সমবায়ীদের মধ্যে নেতৃত্বেও বিকাশ, নারীর ক্ষমতায়ন, স্বাসহ্য ও পুষ্টি কৃষি বিষয়ক কার্যক্রম, নার্সারী ও পরিবেশ উন্নয়ন সহ পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গহণে উদ্ভদ্বকরণ , বিভিন্ন সংক্রামণজনিত রোগ ও তার প্রতিকার, এইচ,আইভি/এইডস, ভোটাধিকার প্রয়োগের গুরত্ব ইত্যাদি বিষয়ে সচেনতা গড়ে তোলা এ বিভাগের উদ্দেশ্য । জেলার রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার উপজেলায় প্রকল্পটি উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

সমিতি গঠন

৮৩টি

০২

সদস্য অন্তর্ভুক্তি

২৩৫১ জন

০৩

শেয়ার জমা

৪.৮৩ লক্ষ টাকা

০৪

সঞ্চয় আমানত

১৩.২৭ লক্ষ টাকা

০৫

মোট ঋণ বিতরণ

৫২০.৩৭ লক্ষ টাকা

০৬

মোট ঋণ আদায়

৪৯৮.৯৮ লক্ষ টাকা

 

৮।            অংশীদারিত্বমূলক  পল্লী  উন্নয়ন প্রকল্প-২ (পিআরডিপি-২) :

যোগাযোগ সহযোগিতা ও সমন্বয় বৃদ্ধির মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে জবাব দিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণ, ইউনিয়ন পরিষদকে ওয়ানস্টপ সার্ভিস ডেলিভারি স্টেশনে রূপান্তর করা, সহনীয় সম্পদের সুষ্ঠ আহরণ ও সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং সামাজিক পুজিঁগঠণে সহায়তা প্রদান, সরকারি-বেসরকারি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান/সংস্থা এবং সহনীয় পর্যায়ে সেবা গ্রহণকারী পক্ষসমূহের মধ্যে সংযোগ ও সমন্বয় বৃদ্ধি এবং তার জোরদারকরণ ও নিজস্ব উদ্যোগে পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং ব্যক্তিগত ও আর্থিক অংশগ্রহণের মাধ্যমে তা বাস্তবায়ন এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য । প্রকল্পটি ২০০৯-১০ অর্থ বছর হতে জেলার সোনারগা উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

গ্রাম কমিটি  গঠন

১৮টি

০২

গ্রাম কমিটি  (জিসি) প্রকল্প গ্রহণ

২৩টি

০৩

ইউনিয়ন কমিটি (ইউসিসি) প্রকল্প গ্রহণ

২টি

০৪

গ্রামবাসী প্রশিক্ষণ ব্যাচ সংখ্যা

৫২টি

০৫

প্রশিক্ষণগ্রহণকারীর সংখ্যা

১৩৯১৫ জন

 

৯।   পল্লী  জীবিকায়ন প্রকল্প (পজীপ)

বাংলাদেশ পল্লী  উন্নয়ন বোর্ড দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দারিদ্র বিমোচনমূলক যে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে এর মধ্যে অন্যতম এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) আর্থিক সহযোগিতাপূষ্ট  পল্লী  জীবিকায়ন প্রকল্প (পজীপ) । প্রকল্পটি জুলাই/১৯৯৮ হতে শুরু হয়েছে। এ প্রকল্পটি নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগা , রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার উপজেলায় বাসত্মবায়িত হচ্ছে।

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

সমিতি গঠন

৩২৫ টি

০২

সদস্য অন্তর্ভুক্তি 

৯৪৩০জন

০৩

পুজিঁ গঠন

৯২.৪০লক্ষ টাকা

০৪

মোট ঋণ বিতরণ

৫০৯৯ লক্ষ টাকা

০৫

 মোট ঋণ আদায়

৪৭২৭.৯৫ লক্ষ টাকা

 

১০।           একটি বাড়ি একটি খামার  প্রকল্প;

পটভূমি :

                মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত বর্তমান সরকার কর্তৃক ঘোষিত "দিন বলদের সনদ" বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকারের অগ্রাধিকারভুক্ত নির্বাচনি অংগীকারের মধ্যে দারিদ্র বিমোচন অন্যতম। নির্বাচনি ইস্তেহার এবং রূপকল্প ২০২১ সাল অনুযায়ী ২০১২ সালের মধ্যে দেশকে খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ করার লক্ষ্যে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি এবং ২০১৫ সালের মধ্যে দারিদ্র হার অর্ধেকে নামিয়ে আনা সহ ‘‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’’ গড়ার বিষয়ে সরকার দৃঢ প্রতিঞ্জ । এ অংগীকারের আলোকে বর্তমান সরকার সহনীয় সম্পদ, সময় ও মানব শক্তি/সত্ত্বাকে সর্বোত্তম ব্যবহার তথা জীবিকায়নের মাধ্যমে প্রতিটি বাড়ীতে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত করতে বদ্বপরিকর। সে লক্ষ্যে  প্রাথমিকভাবে দেশের প্রতিটি গ্রামে ৬০-১০০ জন সদস্য সমন্বয়ে গঠিত গ্রাম সংগঠনকে একটি স্বতন্ত্র অর্থনৈতিক ইউনিট হিসাবে গড়ে তোলার ল্যক্ষে ‘‘একটি বাড়ি একটি খামার’’ প্রকল্পটি বাস্তনায়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জন্য প্রকল্পের আওতাধীন সকল সুফলভোগীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে উঠান বৈঠককে প্রকল্প বাস্তবায়ন তথ্য তাদের জীবন ব্যবস্থা নির্বাহের নিমিত্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় উপকারভোগীদের প্রতি নামে ২০০/- টাকা সঞ্চয় জমার বিপরীতে সমপরিমান ২০০/- টাকা করে উৎসাহ বোনাস এবং প্রতি বছরে সমিতিকে ১,৫০,০০০/- টাকা করে ২ বৎসরে মোট ৩০০,০০০/- লক্ষ টাকা প্রশিক্ষণত্তোর সহায়তা তহবিল প্রদান করা হবে। ২ বছরে প্রতিটি সমিতির তহবিলের পরিমাণ ৯,০০,০০০/-লক্ষ টাকা  করা হবে।

কর্মসূচির মেয়াদ:

জুলাই/২০০৯ হতে জুন/২০১৩ পর্যন্ত সরকারি অর্থায়নে বাস্তবায়িত হয়। জুলাই/২০১৩ থেকে জুন/২০১৬ পর্যন্ত প্রকল্পটি সম্প্রসারিত আকারে বাস্তবায়িত হবে। বর্তমানে সরকার প্রকল্পটিকে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক রুপান্তরের সিদ্বান্ত গ্রহণ করেছেন।

লক্ষ্য:

‘‘একটি বাড়ি একটি খামার’’ প্রকল্পের মূল লক্ষ্যে প্রতিটি পরিবারকে মানব ও অর্থনৈতিক সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে টেকসই আর্থিক কার্যক্রমের একক হিসেবে গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে ২০১৫ সালের মধ্যে জাতীয় দারিদ্র ৪০% থেকে ১৫% - এ নামিয়ে আনা।

বর্তমানে প্রতিটি  উপজেলায় সকল ইউনিয়নের ৯টি করে।  গ্রামে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রতি সমিতিতে উপকারভোগী সদস্য সংখ্যা ৬০ জন(অন্যূন ৪০ জন মহিলা ও ২০ জন পুরুষ)।

নারায়নগঞ্জ জেলার কার্যক্রম :

ক্রমিক 

কর্মকান্ডের বিবরণ

 অগ্রগতি

০১

সমিতি গঠন

২৬৪টি

০২

সদস্য ভর্তি

১৫,০৪৫জন

০৩

সঞ্চয় জমার পরিমাণ

৫৭৩.১৮ লক্ষ টাকা

০৪

সঞ্চয়ের বিপরীতে বোনাস প্রদান

৫৪৯.৪৩ লক্ষ  টাকা

০৫

প্রশিক্ষণোত্তর সহায়তা তহবিল প্রদান                                                                            

৬১২.২৬লক্ষ টাকা
০৬সম্পদ  বিতরন  ( গরু, হাস, মুরগী, টিন, টিউবয়েল ইত্যাদি)                                                                 ১৪০.২০লক্ষ টাকা

০৭   

      

ঋণ বিতরণ  

ক)প্রকল্প সংখ্যা:         

খ)ঋণ বিতরণের পরিমাণ: 

 

১০৯৭৫টি

১২১৫.৪৭

 

 

 

 

০৮  ঋণ আদায়২২৪.৫০ লক্ষ টাকা


Share with :

Facebook Twitter